Sorry, you need to enable JavaScript to visit this website.

খাদ্য বিভাগ

মালদা জেলায় খাদ্য ও সরবরাহ বিভাগের লক্ষ্য,    খাদ্যসাথী প্রকল্পের মাধ্যমে সুলভ মূল্যে নির্দিষ্ট পরিমাণ খাদ্যের যোগান নিশ্চিত করে খাদ্য ও পুষ্টির সুরক্ষা নিরাপত্তা প্রদান করা।  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিশেষ উদ্যোগ ও অনুপ্রেরণায় মালদা জেলার ৪৯, ১৮,১৭৭ জন মানুষ খাদ্য সুরক্ষা কর্মসূচির আওতায় এসেছেন।

জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা আইন (এনএফএসএ)  ও রাজ্য খাদ্য সুরক্ষা যোজনার(আরকেএসওয়াই)  মাধ্যমে অন্ত্যোদয় অন্ন যোজনা, অগ্রাধিকার তালিকাভুক্ত পরিবার, বিশেষ অগ্রাধিকার তালিকাভুক্ত পরিবার ও রাজ্য খাদ্য সুরক্ষা যোজনা -১ এর তালিকাভুক্ত পরিবারের সমস্ত মানুষের কাছে রাজ্যসরকার ২ টাকা কেজি দরে খাদ্যশস্য পৌঁছে দিচ্ছে।

সাস্থ ও পরিবার কল্যান দপ্তরের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে পুষ্টি-পুনর্বাসন কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন শিশু, মা ও তাদের পরিবারের (এস এ এম) জন্য ৫ কিলোগ্রাম চাল, ২.৫ কিলোগ্রাম গম, ১ কিলোগ্রাম মুসুর ডাল ও ১ কিলোগ্রাম ছোলা বিনামূল্যে দেওয়া হচ্ছে “বিশেষ কুপন” চালু করে। এছাড়াও এই জেলায় ২০০ জন দুস্থ্য ছাত্র ছাত্রীদের ৫.৬৫ টাকা কেজি দরে প্রত্যেক মাসে মাথাপিছু ১৫ কিলোগ্রাম চাল পৌঁছে দেওয়া হয় “ওয়েলফেয়ার” স্কীমের মাধ্যমে।

 গনবণ্টন ব্যবস্থা স্বচ্ছ ও গতিশীল করতে ডিজিটাল রেশন কার্ডের প্রবর্তন শুরু হয়েছে।  এ ছাড়া প্রতি বছর রমজান মাসে, দুর্গা পূজা, দিওয়ালী ও ছট পুজোয় রাজ্য সরকার বিশেষ উৎসব প্যাকেজের মাধ্যমে পরিবারগুলিতে ১ কেজি চিনি, ১ কেজি আটা, ১ লিটার ভোজ্য তেল এবং ১ কেজি ছোলা দেওয়া হতে থাকে।

 খরিফ মৌসুমে (2018-19), সরকার প্রায় ৫০,১৩১ জন কৃষকের কাছ থেকে ন্যূনতম সহায়ক মূল্যে ১,৯৬,২৩১ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করেছে।  বর্তমানে জেলায় ধানের অভাবী বিক্রী বন্ধ হয়েছে।  চলতি খরিফ মৌসুমে (২০০০-২০১৮) জেলায় ২,২০,০০০ মেট্রিক টন ধান কেনার প্রচেষ্টা রয়েছে।

খাদ্য বিভাগ মালদার কার্যগুলী

  • আমাদের অফিস থেকে এস কে অয়েলের ১০০১ থেকে ২০০০ লিটার পর্ষন্ত ফায়ার লাইসেন্স পুনর্নবীনিকরন করা হয় ৷
  • এস কে অয়েলের বড় ডিলারের স্টোরেজ লাইসেন্স পুনর্নবীনিকরন করা হয় ৷
  • নতুন পেট্রোল পাম্পের রিটেল সেলিং লাইসেন্স দেওয়া হয় ৷
  • রান্নার গ্যাসের নতুন সেলিং লাইসেন্স দেওয়া হয় ৷
  • পেট্রোল পাম্পের রিটেল সেলিং লাইসেন্স পুনর্নবীনিকরন করা হয় ৷
  • রান্নার গ্যাসের লাইসেন্স পুনর্নবীনিকরন করা হয় ৷
  • এগ্রীমেক এগ্জিকিউটিভ্ ইন্জিনিয়ার এর  ডিজেল্ স্টোরেজ লাইসেন্স  পুনর্নবীনিকরন করা হয় ৷
  • পেট্রোল পাম্পের পুনর্গঠনের কাজ করা হয় ৷
  • রান্নার গ্যাসের লাইসেন্সের পুনর্গঠনের কাজ করা হয় ৷
  • এস কে অয়েলের ফায়ার লাইসেন্সের পুনর্গঠনের কাজ করা হয় ৷
  • স্টিম কয়লার অনুমোদন করা হয় ৷

এই অফিসটি অনলাইনে প্রক্রিয়ায় সমগ্র মালদহ জেলা থেকে এলপিজির ৩৭ জন বিতরণকারী এবং ৮৬ টি পেট্রোল পাম্প ডিলারকে লাইসেন্স প্রদান করে এবং প্রতি বছর একইভাবে নবায়ন করে। এছাড়াও ৩২০ টি এস.কে. তেল ব্যবসায়ীর ফায়ার লাইসেন্স অফলাইন মোডে এই অফিস দ্বারা করা হয় এবংপুনর্নবীকরণ করা হয়। এসকে-র ১০ জন ডিলার রয়েছে যাদের তেল এবং ফায়ার লাইসেন্স এই অফিস থেকে পুনর্নবীকরণ করা হয়। বর্তমানে ২৬ টি নতুন পেট্রোল পাম্প এবং ২২ টি এলপিজি বিতরণকারী প্রক্রিয়াধীন রয়েছে এবং কয়লার লাইসেন্স বরাদ্দ ও পুনর্নবীকরণের কাজ চলছে। মাননীয় হাইকোর্টে কয়েকটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে যাদের অনলাইন প্রক্রিয়ার জন্য চিঠিপত্র দেওয়া হয়েছে।

Footer Background Image