Sorry, you need to enable JavaScript to visit this website.

সামাজিক সুরক্ষা যোজনা

অসংগঠিত শ্রমিকদের উন্নতিকল্পে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগে কিছু সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্প পরিচালিত হয়, যেমন-

১) ভবিষ্যনিধি প্রকল্প

২) স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্রকল্প

৩) নির্মাণ কর্মীদের জন্য সুরক্ষা প্রকল্প

৪) পরিবহন কর্মীদের জন্য সুরক্ষা প্রকল্প        

এই প্রকল্প গুলি থেকে যে অনুদান দেওয়া হয় সেগুলির পরিমাণ এবং তা পাওয়ার জন্য যোগ্যতার মাপকাঠি এক একটি প্রকল্পে এক এক রকমের। তাই প্রকল্পগুলিকে শ্রমিকদের কাছে সহজ ও বোধগম্য করে তোলার জন্য, এগুলিকে একত্রিত করে একটি ই- মার প্রকল্পে পরিণত করে, সকল শ্রমিককে সমান সুবিধা দেওয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে ০১.০৪.২০১৭ থেকে সামাজিক সুরক্ষা যোজনা,  ২০১৮ সমগ্র পশ্চিমবঙ্গে চালু করা হয়েছে। 

যোগ্যতা:  এটি শ্রম দপ্তর দ্বারা প্রজ্ঞাপিত অসংগঠিত শিল্প ও অনিযুক্ত পেশার অনুমোদিত তালিকার প্রত্যেক যোগ্য অসংগঠিত শ্রমিক এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। সদস্য হতে ইচ্ছুক অসংগঠিত শ্রমিকদের পশ্চিমবঙ্গে বাস করতে হবে বয়স 18 থেকে 60 হতে হবে এবং পারিবারিক উপার্জন মাসে 65 হাজার টাকার বেশি হওয়া চলবে না।নির্মাণ কর্মী এবং পরিবহন কর্মীদের জন্য আয়ের ঊর্ধ্বসীমা নেই।

প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধা: শিক্ষা: নথিভূক্ত শ্রমিকের সর্বাধিক দুটি সন্তানের শিক্ষার জন্য নিম্নলিখিত হারে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে।   একাদশ শ্রেণিতে পাঠরত ৪ হাজার টাকা দ্বাদশ শ্রেণীতে পাঠরত ৫ হাজার টাকা আই টি আই প্রশিক্ষণরত বাৎসরিক ৬ হাজার  টাকা স্নাতক স্তরে পাঠরত (কলা/বিজ্ঞান/বাণিজ্য) বাৎসরিক ৬ হাজার টাকা স্নাতকোত্তর স্তরে পাঠরত (কলা/বিজ্ঞান/বাণিজ্য) বাৎসরিক ১০ হাজার হাজার টাকা পলিটেকনিক পাঠরত বাৎসরিক ১০ হাজার হাজার টাকা  ডাক্তারি/ইঞ্জিনিয়ারিং পাঠরত বাৎসরিক ৩০ হাজার হাজার টাকা তাদের দুটি কন্যা সন্তান এর স্নাতকোত্তর পর্যন্ত পড়াশোনা শেষ করার জন্য প্রত্যেক কে ২৫ হাজার টাকা আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করা হবে। এই সুবিধা ওই কন্যাদের পড়াশোনা শেষ হওয়া পর্যন্ত অবিবাহিত থাকলে তবেই প্রদান করা হবে।

দক্ষতা বিকাশ প্রশিক্ষণ: উপভোক্তা এবং অথবা তার পরিবারের সদস্যদের বিভিন্ন ব্যবসা-বাণিজ্য এবং বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে যাতে তারা বিকল্প অর্থনৈতিক কাজ কারবার, মূলত স্বনিযুক্তিতে সমর্থ হয়। পশ্চিমবঙ্গ সোসাইটি ফর স্কিল ডেভলপমেন্ট থেকে বিনা খরচে তারা এই প্রশিক্ষণ পেতে পারে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ:

ক) উপভোক্তা বা তার পরিবারের সদস্যরা কুড়ি হাজার টাকা পর্যন্ত আর্থিক সহায়তা পেতে পারেন অসুস্থতার কারণে ওয়েস্ট বেঙ্গল হেলথ স্কিম -২০০৮ -এর অন্তর্ভুক্ত হাসপাতালে অন্তরবিভাগে বহির্বিভাগে চিকিৎসা হলে ।

খ) শল্য চিকিৎসার ক্ষেত্রে একজন উপভোক্তা এবং অথবা তার পরিবারের সদস্যরা সর্বোচ্চ ৬০ হাজার টাকা বাৎসরিক আর্থিক সাহায্য পাওয়ার অধিকারী হবেন।

গ) দুর্ঘটনাজনিত কারণে একজন উপভোক্তার কর্মদিবস নষ্ট হলে, ওই উপভোক্তা কে প্রথম ৫ দিনের হাজার টাকা এবং বাকি দিনগুলি প্রতিদিনের জন্য অতিরিক্ত ১০০ টাকা করে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত দেওয়া যাবে। এই সুবিধা কেবলমাত্র উপভোগ তাকেই দেওয়া হবে।

ভবিষ্যনিধি:

ক) উপভোক্তা - মাসিক ২৫ টাকা

খ) সরকারি অনুদান-মাসিক ৩০ টাকা

গ) কেন্দ্রীয় সরকার সময়ে সময়ে যে হারে সাধারন ভবিষ্যনিধি প্রকল্প সুদ প্রদান করে রাজ্য সরকারও সেই হারে ওই কর্মচারীর তহবিলে সুদ প্রদান করে।

ঘ) কর্মচারীর ৬০বছর বয়স উত্তীর্ণ হলে অথবা ওই প্রকল্পে গ্রাহকের একাউন্ট বন্ধ হয়ে গেলে অথবা মৃত্যুর কারণে একাউন্ট চালু না থাকলে সুদ সহ সমস্ত পুঞ্জিভূত টাকা ওই শ্রমিককে অথবা তার মনোনীত ব্যক্তিকে বা বৈধ উত্তরাধিকারী কে ফেরত দেওয়া হবে।

ভবিষ্যনিধি প্রকল্প এবং নির্মাণ কর্মী ও পরিবহন কর্মীদের জন্য সুরক্ষা প্রকল্পে ইতিমধ্যে নথিভূক্ত যে সকল শ্রমিক রয়েছেন তাদের এই প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তবে তাদের এই যোজনা ভক্তু আর একটি নির্দিষ্ট ফর্ম ( ফর্ম-১) পূর্ণ করে দরখাস্ত করতে হবে। অতিরিক্ত তথ্য জমা দিয়ে SSIN পাওয়ার জন্য। ভবিষ্যনিধি প্রকল্প যে সকল নথিভূক্ত শ্রমিকরা আছেন তারা যেন মাসিক ২৫ টাকা হারে চাঁদা জমা করে আসছিলেন সেটাই করতে থাকবেন। এ ক্ষেত্রে বিশেষভাবে উল্লেখ করা হচ্ছে যে, নির্মাণ কর্মী ও পরিবহন কর্মীদের প্রতি মাসে সরকারি তহবিল ২৫ টাকা হারে চাঁদা জমা করতে হবে যদি তারা ভবিষ্যনিধি সুবিধা নিতে চান। প্রতিদিন অধিভুক্ত শ্রমিককে সামাজিক মুক্তি কার্ড প্রদান করা হবে।

মৃত্যু ও শারীরিক অসমর্থ্যতা:মৃত্যু: দুর্ঘটনার কারণে মৃত্যু হলে দুই লক্ষ টাকা প্রদান। স্বাভাবিক মৃত্যুকে ৫০ হাজার টাকা প্রদান শারীরিক অসমর্থ্যতা: উপভোক্তার ন্যূনতম ৪০ শতাংশ শারীরিক অসমর্থতা থাকলে ৫০ হাজার টাকা প্রদান।  উপভোক্তার দুর্ঘটনাজনিত কারণে দুটি চোখের দৃষ্টিশক্তি হারালে, দুটি হাতের কর্মক্ষমতা অথবা দুটি পায়ের চলশক্তি শক্তি হারালে দু লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। উপভোক্তার দুর্ঘটনাজনিত কারণে একটি চোখের দৃষ্টিশক্তি হারালে, এক লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে ।

যেকোনো অতিরিক্ত তথ্য সহায়তার জন্য যোগাযোগ করুন ১৮০০১০৩০০০৯

Footer Background Image